এবারের ঈদেও মুগ্ধতা ছড়ালেন এসএমপির নায়েক সফি

প্রকাশিত: ১১:১১ অপরাহ্ণ, আগস্ট ১, ২০২০

এবারের ঈদেও মুগ্ধতা ছড়ালেন এসএমপির নায়েক সফি

 

মবরুর আহমদ সাজু:স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট 

এপ্রিলে দেশে লকডাউন ও সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়। লকডাউনে যখন নিম্নবিত্তরা দুটানায় তখন,সিলেটর নগর পুলিশের এক নায়েক মো.সফি আহমেদ অফিসিয়াল কাজ শেষে,প্রতিদিন মোটরসাইকেলে করে অসহাদের খোঁজে খোঁজে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেছেন। যা এ পর্যন্ত এক দুই করে প্রায় আট সহস্রাধিক পরিবারকে সহায়তা করে
এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করে চলেছেন।
মূলত একজন মানুষ কতটুকু মানবিক হলে এসব কাজ করে তা বলা বাহুল্য।


করোনার সংকটকালিন মুহুর্তে যিনি মানবিক কর্মকান্ড করে স্থানীয়, জাতীয় ও টেলিভিশনে বারবার শিরোনাম হচ্ছেন তিনি হলেন, সফি আহমেদ সিলেট নগর পুলিশের গণমাধ্যম শাখায় কর্মরত। বাড়ি মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলায়। বাবা ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা।


করোনায় মানবতার পাশে দাাঁড়ানো মো. সফি আহমদের কর্মতৎপরতার নগর জুড়ে প্রশংসায় পঞ্চমুখ। এবার ঈদেও অসহায়দের মুখে হাসি ফোটাতে মাঠে ঘাটে কাজ করছেন দূর্দান্ত গতিতে।

হার না মানা মানবতার অকৃত্রিম বন্ধু, সফি আহমদের সাথে কথা হলে তিনি জানান,
পুলিশ জনগণের বন্ধু। ভালো কাজে জনতার পাশে দাঁড়ানোই আমাদের কাজ।

এবার তিনি ঈদেও  মানুষের পাশে থেকে সেবা দিয়ে যাচ্ছেন মানবতার ফেরিওয়ালা নায়েক সফি আহমেদ।  বিশেষ করে দেশে করোনাকালের শুরু থেকে নিজরে বন্ধু-বান্ধব,আত্মীয় স্বজন,পাড়া প্রতিবেশী ও সমাজের বিত্তবানদের সাহায্যে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছন তিনি ।

শুধু কি তাই পবিত্র উল ফিতরের সময় নিজের বেতন ও বোনাসের টাকা দিয়ে গরিব অসহায় মানুষের মুখে আনন্দ ফুটেছেন তিনি । সফি আহমেদ পেশায় একজন পুলিশ সদস্য। সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের (এসএমপি) নায়েক হিসেবে কর্মরত রয়েছেন ।

আজ শনিবার সারাদেশে পবিত্র ঈদ উল আযহা উদযাপিত হচ্ছে । সিলেটে হযরত শাহজালাল (রঃ) মাজারে সকাল ৮ টায় ঈদের প্রথম জামাত শুরু হয়। দরগাহ নিজ উদ্যোগে মানুষের স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্যে হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও মাস্ক বিতরণ করেন সফি।

সফি জানান,করোনাকালের প্রথম দিকে নিজ উদ্যোগে খাবার পৌঁছে দিতেন মানুষের বাসায়। এখন নিজ উদ্যোগে এবং অন্যদের সহযোগিতা খাবার দিচ্ছেন । বিপদে মানুষের পাশে থাকাটা আমাদের দায়িত্ব বলে তিনি জানান, মাস্ক শুধু করোনাভাইরাসের কারণে ব্যবহার করছি তা নয়। মাস্ক থাকলে আমরা বিভিন্ন রোগবালাই থেকে রক্ষা পেতে পারি। আর এই ভাইরাস থেকে বাঁচতে আমাদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা খুব জরুরী


শুক্রবার (৩১ জুলাই) বিকেলে সিলেট নগরের ঘাসিটুলা এলাকায় ইউসেপ ঘাসিটুলা স্কুলের সুবিধাবঞ্চিত বেশ কয়েকজন এতিম শিক্ষার্থীর মধ্যে ঈদ পোশাক ও ঈদের খাবার সহায়তা বিতরণ করেছেন। স্কুলের সহকারী শিক্ষক শাহিদা জামানের তত্ত্বাবধানে বিকেল ৫টায় এসব ঈদ পোশাক ও খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়।ঈদ পোশাক ও খাদ্য সামগ্রীর মধ্যে ছিল, পাঞ্জাবি, টি-শার্ট ও মেয়েদের ফ্রগ (জামা), পোলার চাল, সেমাই, তেল, গুঁড়া দুধ, চিনি, নুডুলস ও ময়দা। ঈদুল আজহার আগের দিন এমন সহায়তা পেয়ে খুশি অসহায় শিক্ষার্থীরাও।

পুলিশের নায়েক মো. সফি আহমেদ জানান, এবার ঈদে পাওয়া আমার নিজের ঈদ বোনাস টাকা ও প্রবাসী কয়েকজন ভাইয়ের সহায়তায় এপর্যন্ত ৩০ জন এতিম শিশু-শিক্ষার্থী, দশজন কুরআনে হাফেজসহ অর্ধশতাধিক মানুষকে ঈদের পোশাক ও খাবার সামগ্রী দিয়েছি। খাবারের সহায়তা কার্যক্রম ঈদের পরেও অব্যাহত রাখবো। তিনি বলেন, এছাড়া বেশ কয়েকজন বন্যাদূর্গত মানুষদের মধ্যেও সহায়তা পৌঁছে দিয়েছি।

বর্তমান পুলিশ ও অতীতের পুলিশ এক নয়। তার বাস্তব প্রমাণ হিসেবে তিনি বলেন,করোনাকালে আমাদের পুলিশের মানবিক এই ভূমিকা জাতি নিসন্দেহে মনে রাখবে?

আমি পুলিশের সদস্য হয়ে নিজেকে অনেক ভাগ্যবান মনে করছি। এছাড়া পুলিশের ওপর অর্পিত দায়িত্ব পালনে আগামী দিনেও মানুষের সুখে-দুখে পাশে থাকবেন এই প্রত্যাশা দেশের আপামর মানুষের।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

আর্কাইভ

August 2020
S M T W T F S
« Jul    
 1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829
3031  
WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com