ঘুরে দাঁড়িয়েছে প্রবাসী আয়, রেকর্ড রেমিটেন্স

প্রকাশিত: ১২:২৭ অপরাহ্ণ, মে ২২, ২০২০

ঘুরে দাঁড়িয়েছে প্রবাসী আয়, রেকর্ড রেমিটেন্স

করোনা মহামারীর মধ্যে প্রবাসী আয় ফের ঘুরে দাঁড়িয়েছে। রোজার ঈদ সামনে রেখে রেকর্ড পরিমাণ রেমিটেন্স পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা।

চলতি মাসের প্রথম ২১ দিনে ১১২ কোটি ১০ লাখ ডলার পাঠিয়েছেন তারা। গত এপ্রিলে ১০৮ কোটি ১০ লাখ ডলারের রেমিটেন্স পাঠিয়েছিলেন প্রবাসীরা।

রেমিটেন্সের এ ঊর্ধ্বগতিতে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ দুই সপ্তাহের ব্যবধানে ফের ৩৩ বিলিয়ন ডলার অতিক্রম করেছে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, করোনার প্রভাবে বিশ্ব এখন সংকটে। স্বাভাবিকভাবেই এর প্রভাব পড়ে রেমিটেন্সেও। আশঙ্কা ছিল, আমদানি ও রফতানি আয়ের মতো অর্থনীতির অন্যতম প্রধান সূচক রেমিটেন্সও তলানিতে নামবে কিন্তু তা হয়নি। গত মার্চ থেকেই রেমিটেন্স কমে আসছিল।

আশাবাদী ছিলেন না অর্থনীতিবিদ ও ব্যাংকাররাও। অতীতে অন্য ঈদের মাসের চেয়ে চলতি মাসে রেমিটেন্স প্রবাহ বাড়ায় কিছুটা স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছেন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কর্মকর্তারা।

প্রতি বছরের মতো গত বছরও রোজার ঈদের আগে মে মাসে ১৭৪ কোটি ৮২ লাখ ডলারের রেকর্ড রেমিটেন্স এসেছিল। এবার করোনার মহামারীর মধ্যে অনেক প্রবাসী শ্রমিকের দেশে ফিরে আসা এবং যারা এখনও রয়েছেন তারাও তাদের ভবিষ্যৎ নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছেন।

এসব রেমিটেন্স নিয়ে আশাবাদী না হওয়ারই ইঙ্গিত দিচ্ছিল। গত মার্চে ১২৮ কোটি ৬৮ লাখ ডলারের রেমিটেন্স এসেছিল, যা গত বছরের মার্চ মাসের চেয়ে ১৩ দশমিক ৩৪ শতাংশ কম।

পরের মাস এপ্রিলে রেমিটেন্স আরও কমে ১০৮ কোটি ১০ লাখ ডলারে আসে, তাও গত বছরের এপ্রিলের চেয়ে ২৪ দশমিক ৬১ শতাংশ কম।

কিন্তু মে মাসে চিত্র পাল্টাতে থাকে। প্রথম ১১ দিনে ৫১ কোটি ২০ লাখ ডলার রেমিটেন্স আসে, ১৩ মে পর্যন্ত আসে ৬৮ কোটি ৮০ লাখ ডলার।

১৪ মে পর্যন্ত আসে ৮০ কোটি ডলার। ২১ মে তা ১১২ কোটি ১০ লাখ ডলারে পৌঁছে। মহামারীর প্রভাব শুরুর আগে রেমিটেন্সে প্রবৃদ্ধি ২০ শতাংশের উপরে ছিল।

এদিকে ঈদের আগে রেমিটেন্স প্রবাহ বাড়ায় রফতানি আয় কমার পরও বাংলাদেশ ব্যাংকের বিদেশি মুদ্রার রিজার্ভ ফের ৩৩ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়েছে। ছুটির আগে শেষ কার্যদিবস বুধবার রিজার্ভ ছিল তিন হাজার ৩২০ কোটি (৩৩.২০ বিলিয়ন) ডলার। তবে শুধু রেমিটেন্স নয়, এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) ২৫ কোটি ডলারের বাজেট সহায়তা যোগ হওয়ায় রিজার্ভ বেড়েছে বলে জানান কেন্দ্রীয় ব্যাংক কর্মকর্তারা।

চলতি মে মাসের প্রথম সপ্তাহে রিজার্ভ ৩৩ দশমিক ২ বিলিয়ন ডলারে উঠে। এশিয়ান ক্লিয়ারিং ইউনিয়নের (আকু) মার্চ-এপ্রিল মাসের আমদানি বিল পরিশোধের পর তা কমে আসে।

অন্যদিকে বাজারে ডলার বিক্রি অব্যাহত রেখেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। বুধবারও ১ কোটি ডলার বিক্রি করা হয়েছে। সব মিলিয়ে চলতি ২০১৯-২০ অর্থবছরের ১৯ মে পর্যন্ত বিভিন্ন ব্যাংকের কাছে আন্তঃব্যাংক মুদ্রার বাজার দরে ৮২ কোটি ২০ লাখ ডলার বিক্রি করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। বুধবার আন্তঃব্যাংক মুদ্রার বাজারে প্রতি ডলারের দর ছিল ৮৪ টাকা ৯৫ পয়সা।

আর্কাইভ

মে ২০২০
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« এপ্রিল    
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১
WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com