জুম্মায় মাজার ফাঁকা গ্রামের মসজিদে মসজিদেও চলছে মাইকিং

প্রকাশিত: ৪:৩২ অপরাহ্ণ, মার্চ ২৭, ২০২০

জুম্মায় মাজার ফাঁকা গ্রামের মসজিদে মসজিদেও চলছে মাইকিং

করোনাভাইরাস প্রবণতা

মবরুর আহমদ সাজু :

বিশ্বব্যাপী নভেল করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার প্রকোপ যখন বেড়েই চলেছে।তখন এই ভাইরাসের ঝুঁকিতে বাংলাদেশ থাকা সত্তে্ব ও সববাধা উপেক্ষা করে সচেতনতার সৃষ্টি করতে একদম পিছপা হচ্ছে না বলে জানিয়েছে বিভিন্ন সরকার বেসরকারি সংস্থাগুলো। বিশেষ করে সিলেট কে করোনাভাইরাস মুক্ত রাখতে একধাপ এগিয়ে রয়েছে সচেতনামূলক কার্যক্রম। এদিকে সরকারের সাধারণ ছুটি ঘোষণার পর যারা শহর ছেড়ে নিজ নিজ বাড়িতে এসে পৌছেছেন তাদের কে রাখা হচ্ছে কঠোর নজরদারি তে।
খোজনিয়ে জানাযায়, গতকাল শুক্রবার থাকায় সিলেটের গ্রামীণ জনপদের মসজিদগুলোতে মাইকিং করে সচেতন হবার আহবান জানানো হয়।

অপরিদেকে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহে সিলেট বিভাগে গত ২৪ ঘন্টায় কোয়ারেন্টিনে যুক্ত হয়েছেন ১০০ জন। এর মধ্যে সিলেটে ১৫ জন, সুনামগঞ্জে ১৯ জন, হবিগঞ্জে ৪৮ জন এবং মৌলভীবাজারে ১৮ জন।

আর একই সময়ে কোয়ারেন্টিন থেকে বাদ পড়েছেন ১৬৯ জন। এ নিয়ে সিলেটে মোট ১ হাজার ৪৯৮ জন কোয়ারেন্টিন থেকে ছাড়পত্র পেলেন।
কোয়ারেন্টিনে থাকা ব্যক্তিদের বেশীরভাগই প্রবাসফেরত। বাকিরা তাদের পরিবার ও আত্মীয়স্বজন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সিলেটের বিভাগীয় কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক ডা. আনিসুর রহমান গণমাধ্যম কে জানান, সিলেট বিভাগে এখন ১ হাজার ৩৫৭ কোয়ারেন্টিন তথা সংগনিরোধ অবস্থায় আছেন। তাদের শারীরিক অবস্থা পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে।

তিনি আরো জানান, সিলেট বিভাগে গত ২৪ ঘন্টায় কোয়ারেন্টিন থেকে ১৬৯ জন মুক্ত হয়েছেন। এর মধ্যে সিলেটে ১৮ জন, সুনামগঞ্জে ৪১ জন, হবিগঞ্জে ৬৬ জন এবং মৌলভীবাজারে ৪৪ জন। তাদের নির্দিষ্ট ১৪ দিন কোয়ারেন্টিনে থাকার মেয়াদ শেষ হয়েছে। এ সময়ের মধ্যে তাদের শরীরে করোনাভাইরাসের উপসর্গ ধরা পড়েনি।

এদিকে ভাইরাস আক্রান্তে
চরম বৈরী সময়ে ৩য় সপ্তাহের মতো মসজিদে জুমার নামাজ আদায় করা হয়েছে হজরত শাহজালাল রহ. দরগা মসজিদে।
সবচেয়ে তুলনামূলকভাবে মুসল্লিদের উপস্হিতি কম ছিল। ঐদিন ছোট্ট সুরা দিয়ে ইমাম নামাজ আদায় করেছেন। জানাযায়,
জামাতের পনেরো মিনিটের মধ্যে ফাঁকা হয়ে গেলে তালা দেয়া হয়। শহরের মুসল্লীরাই ছিলেন। বাইরের লোকজন ছিলো তুলনামূলক । তবে মাঠের বাইরে থেকে মূল মসজিদে মুসল্লিদের ভর্তি ছিল। শুধু প্রাঙ্গণের মাঠ খালি ছিল।
দরগার প্রধান রাস্তা সুনশান নীরবতা। কোন দোকান পাট খোলা নই। অন্য রাস্তা পাড়া মহল্লার একই চিত্র।

মাজার জিয়ারতেও ভীড় ছিল না। তবে সচেতননগরবাসী মনে করছেন
আগামী সপ্তাহে যদি অবস্থার অবনতি নাহয় তাহলে সবকিছু স্বাভাবিক হয়ে আসবে। এছাড়া শহরবাসী নিয়ম মানছেন।

আর্কাইভ

মে ২০২০
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« এপ্রিল    
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১
WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com