‘জলকন্যা জগন্নাথপুর’

প্রকাশিত: ১১:১০ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ২৫, ২০২০

‘জলকন্যা জগন্নাথপুর’

জলকন্যা জগন্নাথপুর’-কবি বজলুর রশীদ চৌধূরী

ঘুমিয়ে আছ জল কন্যা জগন্নাথপুর থানা,
রাজ্য পাঠে নাম তোমার সবার আছে জানা।
রূপ সাগরের রানী তুমি রূপের অহংকার,
তোমার কোলে কত রত্ন তোমার অলংকার।
জল বিহার কর তুমি-জলে জলে ভাসি,
কানে কানে প্রেমের কথা কও হাসি হাসি।
এলো কেশে বর্ষায় ভেসে টেউয়ের তালে তালে,
সারা অংগ দুলিয়ে বেড়াও-গাঁয়ের খালে নালে।
নদী নালা হাওর দিঘী পেরিয়ে অনেক দুর,
চোখে নাহি মিলে ঠাঁই-রাজ্য জগন্নাথপুর।
ইতিহাসের পাতাধরে কত ভ্রমনকারী,
রূপ সাগরে গা ভাসাতে আসে তোমার বাড়ী।
জলে হাস জলে ভাস ওগো জলের পরী,
ভরা বর্ষায় কত রূপ অংগে রাখ ধরি।
হলুদ বরন গা ভাসে কৃষ্ণ বরণ জলে,
থরে থরে প্রেমের মালা পর তোমার গলে।
হিজল বরুণ কেয়া কেতকী সাজায় জলের আসর,
কদম ফুলের মালায় সাজে তোমার বিয়ের বাসর।
জলে ভাষা আষাঢ় মাস-খেলায় মাতে জল,
নীল হাওরের গহীন বুকে নামে রূপের ঢল।
বাদল ঘেরা ঘুট বরিষায় রংধনু ভাসে,
গুড়ী গুড়ী বৃষ্টির ফাঁকে জল কুমারী হাসে,
রং বেরংগের কত নাও সারিগান ধরে,
মিলন মেলায় মেতে উঠে তোমার বুকের পরে।
কত কবি কত বাউল তোমার গান গায়,
কত রাজার বিরহ ব্যথা চোখের জল ঝরায়।
লাউড. কে তুমি টেনে নিলে রাম রাজা নাম,
তার পুত্র কেশব দত্ত কেশব পুর গ্রাম।
নয়া দিঘী খনণ করে পান কর পানি,
খুশীর জোয়ারে ভাসে প্রজা লোক মুখে জানি।
তোমার তরে কত রাজা জীবন দিল ঢালি,
কত রাজা স্বদল বলে রাজ্য গেল চালি।
চঙ্গ টিলায় সাজে কনে জামাই কাটা বর,
অভিশাপে সাপাতিয়া ভাঙ্গে বাসর ঘর।
সর্প রানী নিপাত যায় রানীগঞ্জ নাম,
সাগর দিঘী কমলা মরে-হায়রে পদ্ম স্বাম!
মই সায়রে কাট সাঁতার দূর্বা দিঘী স্নান,
নলু হাওরে গা ভাসিয়ে শীতল কর প্রাণ।
কত রূপ ধরে আছ ওগো রূপের পরী,
দেখলে তোমায় প্রান জুড়ায়-আহা মরি মরি।
ঘুমিয়ে আছ রাজকুমারী জয় বিজয়ের ঘরে,
সেজে বস আবার তুমি দেখি নয়ন ভরে।

লেখক : মিশিগান, যুক্তরাষ্ট্র।

আর্কাইভ

মে ২০২০
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« এপ্রিল    
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১
WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com