হাকালুকিতে শিকারিদের বিষটোপে প্রাণ গেলো পাঁচশ হাঁসের

প্রকাশিত: ২:০৬ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০২০

হাকালুকিতে শিকারিদের বিষটোপে প্রাণ গেলো পাঁচশ হাঁসের

মৌলভীবাজারের হাকালুকি হাওরে পরিযায়ী পাখি শিকারিদের বিষটোপে এক খামারির ৫০০ হাঁস মারা গেছে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় খামারের মালিক পাখি শিকারিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনে অজ্ঞাতনামা আসামি করে থানায় মামলা করেছেন। বুধবার (১২ ফেব্রুয়ারি) এ ঘটনা ঘটে বলে বড়লেখা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ইয়াসিনুল হক নিশ্চিত করেন।

জানা যায়, মৌলভীবাজারের হাকালুকি হাওরে বিষটোপ দিয়ে পরিযায়ী পাখি শিকারের অভিযোগ দীর্ঘদিনের। গত সোমবার রাতে বড়লেখা উপজেলার ইসলামপুর এলাকায় পাখি শিকারিরা বিষটোপ দিয়ে রাখে। পরদিন মঙ্গলবারে ইসলামপুর গ্রামের দরিদ্র খামারি ইসলাম উদ্দিনের খামারের প্রায় পাঁচশ হাঁস বিষটোপে মারা যায়।

ইসলাম উদ্দিন জানান, একটি বেসরকারি সংস্থার কাছ থেকে ঋণ নিয়ে তিনি হাঁসের খামার করেন। হাঁসগুলো প্রতিদিন সকালে তিনি পলোভাঙ্গা বিলে ছেড়ে দেন এবং বিকেলে নিয়ে আসেন। মঙ্গলবার বিকেলে হাঁসগুলো আনতে গিয়ে দেখেন মৃত অবস্থায় পড়ে আছে। তার মধ্যে গুটিকয়েক হাঁস জীবিত।

স্থানীয়রা জানান, শীত মৌসুমে হাকালুকি হাওরের বিভিন্ন বিলে পরিযায়ী পাখিরা আসে। এসব পাখি মারতে চোরা শিকারিরা বেপরোয়া হয়ে ওঠে। প্রায় সব কটি বিলে পাখি শিকারিদের দৌরাত্ম্য দেখা যায়। শিকারিরা বিকেল বেলা হাওরের বিলগুলোতে বিষ জাতীয় দ্রব্য মিশ্রিত ধান ছিটিয়ে রাখে। রাতে অতিথি পাখিরা খাবারের সন্ধানে বিলের পারে এসে বিষ মিশ্রিত ধান খেয়ে মারা যায়। পরে শিকারিরা মৃত পাখি জবাই করে বিভিন্ন বাজারে বিক্রি করে।

স্থানীয়রা আরও জানান, হাওরের প্রায় সকল এলাকায় শিকারিদের দৌরাত্ম্য রয়েছে। তবে বড়লেখা উপজেলার ইসলামপুর হাল্লা ও খুঁটাউরা এলাকায় সবচেয়ে বেশি পাখি শিকার হয়।

বড়লেখা থানার ওসি মো. ইয়াছিনুল হক জানান, মৌখিক অভিযোগ পেয়ে ঘটনা তদন্তের জন্য মঙ্গলবার দু’জন এসআইকে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। প্রকৃতপক্ষে কতগুলো হাঁস মারা গেছে তা এখনো নিশ্চিত না। তদন্ত সাপেক্ষে এ ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আর্কাইভ

ফেব্রুয়ারি ২০২০
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« জানুয়ারি    
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯  
WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com