প্রচ্ছদ

ঘুষ, দুর্নীতির প্রতিবাদে হানিফ বাংলাদেশি এবার বগুড়ায়

প্রকাশিত হয়েছে : ১১:১৮:৪৪,অপরাহ্ন ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | সংবাদটি ১৫ বার পঠিত

সিলেটেরকন্ঠডটকম

সমাজ ও রাষ্ট্রে ঘুষ, দুর্নীতি, নৈতিক অবক্ষয়ের প্রতিবাদে এবং প্রতিরোধে হানিফ বাংলাদেশি দেশের ৬৪ জেলা প্রশাসককে স্মারকলিপি প্রদান কর্মসূচি শুরু করেছেন। পাশাপাশি তিনি লিফলেটও বিতরণ করছেন।

গত ২ সেপ্টেম্বর সিলেট জেলা প্রশাসককে স্মারকলিপি দিয়ে তার সফর শুরু করেন। বৃহস্পতিবার বিকালে তিনি ১৪তম জেলা বগুড়ায় পৌঁছে জেলা প্রশাসক ফয়েজ আহাম্মদকে স্মারকলিপি দিয়েছেন।

আগামী ২০ অক্টোবর কক্সবাজার জেলা প্রশাসককে স্মারকলিপি দিয়ে তার এ সফর শেষ করবেন।

জানা গেছে, নোয়াখালী সদর উপজেলার নিয়াজপুর ইউনিয়নের জাহানাবাদ গ্রামের আবদুল মান্নান রেনু মিয়ার একমাত্র ছেলে মোহাম্মদ হানিফ। দেশের বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে কাজ করায় বন্ধুরা তাকে ‘হানিফ বাংলাদেশি’ বলে ডাকেন। বর্তমানে তিনি এ নামেই পরিচিত।

গত ১৯৯৯ সালে নোয়াখালীর বুলুয়া ডিগ্রি কলেজ থেকে উচ্চমাধ্যমিক পাস করেন। এরপর চট্টগ্রাম ওমর গণি এমএস কলেজে স্নাতকে ভর্তি হন। রেজাল্ট খারাপ হওয়ায় লেখাপড়া ছেড়ে চট্টগ্রামের একটি সিঅ্যান্ডএফ প্রতিষ্ঠানে কমিশন এজেন্টের কাজ নেন।

সাত বছর আগে রংপুরের পীরগঞ্জের শিল্পী আকতারকে বিয়ে করেছেন। গ্রামের বাড়িতে স্ত্রী ও শিহাব (৬) ও সায়মা (২) নামে দুই সন্তান রয়েছে। আগে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সঙ্গে থাকলেও এখন শুধু দেশের নানা সমস্যা নিয়ে কাজ করছেন। বর্তমানে ঢাকায় ভাড়া বাসায় থাকেন।

বৃহস্পতিবার দুপুরে একান্ত আলাপচারিতায় হানিফ বাংলাদেশি জানান, স্বাধীনতার পর যে রাজনৈতিক দল ক্ষমতায় এসেছে তারাই ঘুষ, দুর্নীতি ও নৈতিক অবক্ষয়ে নিমজ্জিত ছিল। যা আজ চরম আকার ধারণ করেছে। সমাজ, রাষ্ট্র সর্বত্রই ঘুষ, দুর্নীতি, সামাজিক, মানবিক, পারিবারিক মূল্যবোধের অবক্ষয় চলছে।

তিনি বলেন, গুজব ছড়িয়ে নিরীহ মানুষকে হত্যা করা হচ্ছে। ছোট মেয়েদের ধর্ষণের পর নির্মমভাবে হত্যা করা হচ্ছে। তুচ্ছ ঘটনায় একে অন্যকে কুপিয়ে হত্যা করছে। নারী-শিশু নির্যাতন মহামারী আকার ধারণ করেছে। পরস্পর দোষারোপ ও প্রতিহিংসার রাজনীতি অবক্ষয়কে আরও বাড়িয়ে দিচ্ছে।

হানিফ বাংলাদেশি জানান, চলমান দুর্বৃত্তায়িত রাজনীতির অবসান হলে এবং আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা হলে, প্রতিটি নাগরিক তার দায়িত্ব-কর্তব্য সম্পর্কে সচেতন হলে, অন্যায়ের বিরুদ্ধে সোচ্চার হলে অবক্ষয় নির্মূল সম্ভব।

তিনি জানান, জেলা প্রশাসকরা একটা জেলার সর্বময় ক্ষমতার অধিকারী। তারা সুষ্ঠুভাবে দল-মত নির্বিশেষে আইনের শাসন প্রয়োগ করলে সমাজ দুর্নীতিমুক্ত হবে। তাহলে মানুষের মাঝে নৈতিক মূল্যবোধ জাগ্রত করা সম্ভব। তাই তিনি দেশের ৬৪ জেলা প্রশাসককে স্মারকলিপি দেয়ার সিদ্ধান্ত নেন। এতে ব্যাপক সাড়া পাচ্ছেন।

গত ২ সেপ্টেম্বর সিলেটের জেলা প্রশাসককে স্মারকলিপি দেয়ার মাধ্যমে ৬৪ জেলায় সফর শুরু করেছেন হানিফ বাংলাদেশি। সুনামগঞ্জ, মৌলভীবাজার, হবিগঞ্জ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, নরসিংদী, কিশোরগঞ্জ, ময়মনসিংহ, নেত্রকোনা, শেরপুর, জামালপুর, টাঙ্গাইল ও সিরাজগঞ্জ জেলা হয়ে বৃহস্পতিবার বিকালে ১৪তম জেলা বগুড়া জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে পৌঁছেন। বিকাল ৩টায় জেলা প্রশাসক ফয়েজ আহম্মদকে স্মারকলিপি দিয়েছেন।

উত্তরাঞ্চল ও দেশের অন্যান্য জেলা সফর শেষে আগামী ২০ অক্টোবর কক্সবাজারে পৌঁছবেন। সেখানকার জেলা প্রশাসককে স্মারকলিপি দেয়ার মাধ্যমে ৬৪ জেলা সফর শেষ করবেন।

হানিফ বাংলাদেশি জানান, যানবাহনযোগে বিভিন্ন জেলা সফর, থাকা ও খাওয়া বাবদ প্রায় ৬৪ হাজার টাকা ব্যয় হবে। বিভিন্ন জেলার বন্ধু-বান্ধব ও নিজের জমানো টাকা থেকে এ কর্মসূচি পালন করছেন। তিনি তার সফর সফল করতে আইন-শৃংখলা বাহিনী ও দেশবাসীর সহযোগিতা কামনা করেছেন।

পরে তিনি গাইবান্ধার উদ্দেশে বগুড়া ত্যাগ করেন।

হানিফ বাংলাদেশি ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠার দাবিতে গত ১৪ মার্চ থেকে ১২ এপ্রিল পর্যন্ত টেকনাফ থেকে তেঁতুলিয়া পর্যন্ত প্রায় ১০০৪ কিলোমিটার একক পদযাত্রা করেন। গত ৬ মে নির্বাচন কমিশনের পদত্যাগের দাবিতে পচা আপেল নিয়ে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেন।

এ ছাড়া ভোটাধিকারের দাবিতে সংসদ ভবনের সামনেও অবস্থান নিয়েছিলেন হানিফ বাংলাদেশি।

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com