প্রচ্ছদ

আবারও বাড়ল স্বর্ণের দাম

প্রকাশিত হয়েছে : ১১:৫২:০০,অপরাহ্ন ২৩ জুলাই ২০১৯ | সংবাদটি ২২ বার পঠিত

সিলেটেরকন্ঠডটকম

মাত্র ২০ দিনের ব্যবধানে আবারও বাড়ল স্বর্ণের দাম। আন্তর্জাতিক বাজারে স্বর্ণের দাম বাড়ায় দেশের বাজারে ভরিতে ১ হাজার ১৬৬ টাকা পর্যন্ত বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ জুয়েলারি সমিতি (বাজুস)।

বুধবার থেকে এই দাম কার্যকর হবে। এর আগে সর্বশেষ গত ৩ জুলাই দাম বাড়ানো হয়েছিল।

স্বর্ণের নতুন দাম অনুযায়ী, বুধবার থেকে ২২ ক্যারেটের (সবচেয়ে ভালো মানের) প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম দাঁড়াবে ৫৩ হাজার ৩৬২ টাকা।

বাজুসের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ কুমার আগরওয়ালা স্বাক্ষরিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়।

এদিকে আর্ন্তজাতিক বাজারে (দুবাই) মঙ্গলবার প্রতি গ্রাম স্বর্ণের দাম ছিল ৪৩ দশমিক ৮৯ ডলার। এ হিসাবে স্থানীয় মুদ্রায় প্রতিভরির দাম পড়ে (প্রতি ডলার ৮৫ টাকা হিসাবে) ৪৩ হাজার টাকা। ফলে দাম কমার পরও দুবাইয়ের সঙ্গে বাংলাদেশি বাজারে ভরিতে পার্থক্য ১০ হাজার ৩৬২ টাকা। অর্থাৎ স্বর্ণের বাজারে বিশৃংখলা চলছে।

নতুন মূল্য অনুযায়ী, ২২ ক্যারেটের প্রতি ভরি (১১ দশমিক ৬৬৪ গ্রাম) স্বর্ণের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ৫৩ হাজার ৩৬২ টাকা। মঙ্গলবার এর দাম ছিল ৫২ হাজার ১৯৬ টাকা। এ হিসাবে ভরিতে দাম বেড়েছে ১ হাজার ১৬৬ টাকা।

এ ছাড়া ২১ ক্যারেটের প্রতি ভরি ৪৯ হাজার ৮৬৩ টাকা থেকে বেড়ে ৫১ হাজার ২৯ টাকায় বিক্রি হবে। এ হিসাবে ভরিতে দাম কমেছে ১ হাজার ১৬৬ টাকা। ১৮ ক্যারেটের স্বর্ণ প্রতি ভরি ৪৪ হাজার ৮৪৮ টাকা থেকে বেড়ে ৪৬ হাজার ১৪ টাকায় বিক্রি হবে। ফলে ভরিতে দাম বেড়েছে ১ হাজার ১৬৬ টাকা।

তবে সনাতন পদ্ধতির স্বর্ণের দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। এ মানের স্বর্ণের প্রতি ভরি আগের মতো ২৭ হাজার ৮২৭ টাকায় বিক্রি হবে।

অন্যদিকে অপরিবর্তিত রয়েছে রূপার দামও। আগের দাম অনুসারে প্রতি ভরি রূপা ৯৩৩ টাকায় বিক্রি হবে। এ ছাড়া ২৩ ক্যারেটের প্রতি গ্রামের প্লাটিনামের মূল্যও একই হারে বেড়ে ৬৫ হাজার টাকায় বিক্রি হবে। তবে একজন ক্রেতা কোনো জুয়েলারির দোকান থেকে স্বর্ণের অলংকার কিনতে চাইলে তাকে ৫ শতাংশ হারে ভ্যাট দিতে হয়। এরপর ভরিতে প্রায় ৩ হাজার টাকা পর্যন্ত মজুরি দিতে হয়।

সূত্র জানায়, মানভেদে দেশে চার ধরনের স্বর্ণ বিক্রি হয়। এরমধ্যে ২২ ক্যারেটে ৯১ দশমিক ৬ শতাংশ, ২১ ক্যারেটে ৮৭ দশমিক পাঁচ শতাংশ, ১৮ ক্যারেটে ৭৫ শতাংশ বিশুদ্ধ স্বর্ণ থাকে। আর পুরনো স্বর্ণালংকার গলিয়ে তৈরি করা হয় সনাতন পদ্ধতির স্বর্ণ। এক্ষেত্রে বিশুদ্ধ স্বর্ণের পরিমাণ নির্দিষ্ট করা নেই।

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com