প্রচ্ছদ

ট্যাংকারে হামলা, সৌদি আরবের বৈঠকে ইরান বিষয়ে যে আলোচনা হতে পারে

প্রকাশিত হয়েছে : ৫:৩৯:৫৬,অপরাহ্ন ১৯ মে ২০১৯ | সংবাদটি ৩৭ বার পঠিত

সিলেটেরকন্ঠডটকম

যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে ইরানের চলমান উত্তেজনার মধ্যে মধ্যপ্রাচ্যের শান্তি বিষয়ে জরুরি বৈঠক আহ্বান করেছেন সৌদি বাদশাহ সালমান বিন আবদুল আজিজ।

আগামী ৩০ মে আরব লীগ ও উপসাগরীয় সহযোগিতা কাউন্সিলের এ বৈঠকে ইরানের সম্ভাব্য তৎপরতার বিষয়ে পর্যালোচনায় বসবেন আরব নেতারা। খবর আল আরাবিয়্যাহর।

সৌদি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, বিগত কয়েকদিনে সৌদির তেল পাম্প ও আরব আমিরাতের উপকূলে চারটি তেল ট্যাংকারে নাশকতামূলক হামলা এবং উপসাগরীয় অঞ্চলে চলমান অস্থিরতার বিষয়ে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে।

সৌদি আরবের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা জানিয়েছে, ইতিমধ্যে এ বৈঠকের আমন্ত্রণ জানিয়ে সৌদি বাদশাহর পক্ষ থেকে আরব নেতাদের কাছে চিঠি পাঠানো হয়েছে।

৩০ মে আরব লীগ ও উপসাগরীয় সহযোগিতা কাউন্সিলের বৈঠকের পরদিনই ৩১ মে ওআইসির শীর্ষ পর্যায়ের নেতাদের বৈঠক অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।

সৌদি সরকারের ব্যবস্থাপনায় গুরুত্বপূর্ণ তিনটি বৈঠক থেকে ইরান বিষয়ে একটি কঠিন বার্তা দেয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

ইতিমধ্যে ইরানের সম্ভাব্য হামলা ঠেকাতে সৌদি আরবসহ উপসাগরীয় কয়েকটি দেশ তাদের সমুদ্রসীমায় মার্কিন সেনা মোতায়েন ও সামরিক স্থাপনার অনুমোদন দিয়েছে।

ইরানকে দমাতে যুক্তরাষ্ট্র যে কয়েকটি আরব দেশের জলপথ ব্যবহারের অনুমতি চেয়েছিল, সৌদি আরবসহ উপসাগরীয় কয়েকটি দেশ সে বিষয়ে পূর্ণ অনুমোদন দিয়েছে।

চিরবৈরী ইরানে হামলার জন্য যুক্তরাষ্ট্রকে রাজি করাতে উঠেপড়ে লেগেছে সৌদি আরব। ইরানের বিরুদ্ধে আরও আগ্রাসী অবস্থান নিতে রিয়াদ ও আবুধাবি সরকার যুক্তরাষ্ট্র ছাড়াও মিসরের ওপর চাপ সৃষ্টি করছে।

মিশরের একটি কূটনৈতিক সূত্র জানিয়েছে, মধ্যপ্রাচ্যে সেনা পাঠানোর বিষয়ে মিসরকে রাজি করতে দেশটিকে আর্থিক এবং তেল সুবিধা দেয়ার পাশাপাশি সেখানে সরাসরি বিনিয়োগের প্রস্তাব দিয়েছে সৌদি আরব এবং আরব আমিরাত।

সংবাদমাধ্যমটি আরও জানিয়েছে, সৌদি আরবের তেল কোম্পানি আরামকো মিসরকে প্রতি মাসে সাত হাজার ৫০০ কোটি ডলার মূল্যের তেল ফ্রি দেয়ার সময়সীমা বাড়ানোর পাশাপাশি মিসরের কেন্দ্রীয় ব্যাংকে বিপুল পরিমাণ ডলার জমা রাখার প্রস্তাব দিয়েছে রিয়াদ।

এ ছাড়া আরব আমিরাতও মিসরের মোট রিজার্ভ বাড়াতে ১৫ বিলিয়ন ডলার জমা রাখার প্রস্তাব দিয়েছে।

রোববার সৌদি আরবের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আদেল আল জুবায়ের জানিয়েছেন, ইরানের সঙ্গে যুদ্ধ চায় না সৌদি আরব। তবে সৌদি তেল সম্পদের ওপর গত সপ্তাহের হামলার পর সব শক্তি দিয়ে তাদের প্রতিক্রিয়া জানাতে প্রস্তুত রয়েছে তারা।

তিনি বলেন, সৌদি আরব চায় না এই অঞ্চলে কোনো যুদ্ধবিগ্রহ সংঘটিত হোক। এই যুদ্ধটি প্রতিরোধ করার জন্য যা করা প্রয়োজন তা আমরা করব এবং এটাও নিশ্চিত করতে চাই যে অন্য পক্ষও যাতে যুদ্ধটি থেকে বিরত থাকে। সৌদি এ বিষয়টি সব শক্তি ও দৃঢ়তার সঙ্গে সাড়া দেবে এবং পাশাপাশি এটি নিজের এবং অন্যদের স্বার্থ রক্ষায় সহায়ক ভূমিকা পালন করবে, বলেন তিনি।

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com