প্রচ্ছদ

ভালোবাসা দিবসে গৌরীপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অনন্য আয়োজন

প্রকাশিত হয়েছে : ২:২৮:৩৯,অপরাহ্ন ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ | সংবাদটি ৮ বার পঠিত

সিলেটেরকন্ঠডটকম

আজ বিশ্ব ভালোবাসা দিবস। এদিন একে অপরকে ফুল, শুভেচ্ছা কার্ড আর বাহারি উপহার দিতে ব্যস্ত থাকবে প্রেমযুগলেরা।

তবে বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে অনন্য ও অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন ময়মনসিংহের গৌরীপুর।

ভালোবাসা দিবসকে ব্যক্তিগত জীবনের পরিধিতে রাখেননি তারা।

তারা এ ভালোবাসা উৎসর্গ করেছেন নিজেদের প্রিয় বিদ্যালয়কে।

এমন এক ভালোবাসায় বদলে গেছে চান্দের সাটিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাঠদান ও পরিবেশ।

ভালোবাসার ফ্রেমে যুক্ত হয়েছেন বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী, শিক্ষক আর অভিভাবকেরা।

দিবসটি উদযাপনে বিদ্যালয়ে নেয়া হয়েছে নানা কার্যক্রম।

ভালোবাসার ছোঁয়ায় মেতেছে শিক্ষার্থীদের পোষাক, বিদ্যালয় আঙিনা।

ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে বিদ্যালয়ের দেড়শ শিক্ষার্থীকে দেওয়া হয়েছে নতুন স্কুল ব্যাগ।

প্রত্যেকটি ব্যাগে বিদ্যালয়ের নামে সঙ্গে যুক্ত হয়েছে ‘আমাদের স্কুল আনন্দের রঙিন ফুল’ শ্লোগান।

এছাড়াও সবাইকে দেয়া হয়েছে রঙিন পোশাক, নতুন জুতো।

এসব পেয়ে মহাউৎসবে মেতেছে কোমলমতি শিক্ষার্থীরা।

একেবারেই পাল্টে গেছে বিদ্যালয়ের পরিবেশ। বিদ্যালয়ের মাঠে দুলছে দুলনা। সুসজ্জিত করা হয়েছে পাঠাগারকে। সেখানে এসেছে নতুন নতুন বই।

প্রাক প্রাথমিকের শ্রেণিকক্ষকে শিশুবান্ধব করে সাজানো হয়েছে।

আয়োজন করা হয়েছে ‘মহানুভবতার দেয়াল’ ও ‘সততা স্টোর’ নামের দুটি ব্যতিক্রমী স্টোর।

‘আমার যা দরকার নেই তা রেখে যাবো, যা দরকার তা নিয়ে যাবো’ শ্লোগানে চালু করা হয়েছে এই ‘মহানুভবতার দেয়াল’।

এ দেয়ালে থাকছে চক, বই, খাতা, পুরাতন ড্রেস, কলম, জুতাসহ নানা শিক্ষা উপকরণ।

ছাত্রছাত্রীদের যার প্রয়োজন সে ইচ্ছা করলেই সেই দেয়াল থেকে প্রয়োজনীয় শিক্ষা উপকরণ নিতে পারছে।

আবারও যেসব ছাত্রছাত্রীদের বাড়তি যা অপ্রয়োজনীয় শিক্ষা উপকরণ রয়েছে, তা স্বেচ্ছায় এই দেয়ালে জমা দিচ্ছেন।

সততা স্টোর থেকে শিক্ষার্থীরা মূল্য পরিশোধ করে প্রয়োজনীয় পণ্য ক্রয় করছেন।

বিশ্ব ভালোবাসা দিবস উদযাপনের এমন দৃষ্টানের পেছনের কারিগর চান্দের সাটিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নাসরিন বিনতে ইসলাম।

এ আয়োজন প্রসঙ্গে মাত্র ৯ মাস আগে দায়িত্ব নেয়া বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক নাসরিন বিনতে ইসলাম জানান, বিদ্যালয়ের প্রতি শিক্ষার্থীদের আগ্রহ, ভালোবাসা বাড়াতেই এমন কার্যক্রম হাতে নিয়েছেন তিনি।

এমন একটি আয়োজনের স্বপ্ন দেখতেন নাসরিন বিনতে ইসলাম।

আর সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকের ‘প্লেন্ট এক্সচেঞ্জ গ্রুপ’ এগিয়ে এসেছেন বলে জানান তিনি।

তিনি বলেন, গ্রুপটির এডমিন নাহিদ আহাম্মেদকে আমার স্বপ্নের কথাটি জানাই। তিনিই গ্রুপের মাধ্যমে প্রায় দেড় লাখ টাকা ব্যয়ে শিক্ষার্থীদের শিক্ষা উপকরণের ব্যবস্থা করে দেন।

বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ায় আমুল পরিবর্তন দেখে এগিয়ে এসেছেন এলাকাবাসীও।

তারাও তাদের সামর্থ্যনুযায়ী শিক্ষা উপকরণ ও সহযোগিতা প্রদান করছেন বলে জানান নাসরিন বিনতে ইসলাম।

এ বিয়য়ে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মো. মোফাজ্জল হোসেন বলেন, প্রাথমিক শিক্ষার জন্য গৌরীপুর চান্দের সাটিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রসঙ্গে এমন আয়োজন প্রশংসনীয় ও অনুকরণীয়!

ময়মনসিংহের গৌরীপুর চান্দের সাটিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি ১৯৭১ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়।

২০১৭ ও ২০১৮ সালের প্রাথমিক সমাপনি পরীক্ষায় শতভাগ পাসের কৃতিত্ব বজায় রাখেছে বিদ্যালয়টি।

বর্তমানে এর শিক্ষার্থী সংখ্যা ২শ ৪৪জন।

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com