প্রচ্ছদ

‘চৈতির আত্মহত্যার বিচার হলে অরিত্রির মরতে হতো না’

প্রকাশিত হয়েছে : ৩:২৭:০১,অপরাহ্ন ০৫ ডিসেম্বর ২০১৮ | সংবাদটি ৫ বার পঠিত

সিলেটেরকন্ঠডটকম

অভিভাবককে ডেকে শিক্ষকের অপমানের জেরে ভিকারুননিসা নূন স্কুলের শিক্ষার্থী অরিত্রি অধিকারীর আত্মহত্যার ঘটনায় শিক্ষার্থীদের আন্দোলন দেশব্যাপী ছড়িয়ে পড়তে পারে বলে মন্তব্য করেছেন স্কুলটির গভর্নিংবডির সদস্য ও সুপ্রিমকোর্টের অ্যাডভোকেট মো. ইউনুস আলী আকন্দ।

তিনি বলেন, ২০১২ সালে চৈতি নামের একটি মেয়ের ইচ্ছা ছিল সায়েন্স নিয়ে পড়বে। তাকে সায়েন্স নিয়ে পড়তে দেয়া হয়নি। পরে মেয়েটি এক বছর নষ্ট করে পুনরায় পরীক্ষা দিলেও তাকে সায়েন্স দেয়া হয়নি। পরে মেয়েটি আত্মহত্যা করে। যদি চৈতির আত্মহত্যার বিচার হতো, তা হলে অরিত্রি অধিকারীর মরতে হতো না।

ভিকারুননিসা নূন স্কুলের বেইলি রোডের মূল শাখার বাইরে জড়ো হওয়া সাংবাদিকদের কাছে বুধবার তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, আমি গতকাল গভর্নিংবডিকে লিগ্যাল নোটিশ দিয়েছিলাম-২৪ ঘণ্টার মধ্যে অভিযুক্তদের বরখাস্ত করতে। অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। তার এখন পুলিশ কাস্টডিতে অথবা সাসপেন্ডেড অথবা জামিনে থাকা উচিত ছিল। কিন্তু কিছুই হয়নি।

২০১২ সালে আমি একবার আদালতে রিট করে আদেশ নিয়ে বুয়েটের শিক্ষার্থীদের আন্দোলন থামিয়ে ছিলাম। এবার আর তা করব না। শিক্ষার্থীদের এ আন্দোলন দেশব্যাপী ছড়িয়ে যাবে।

বুধবার সকাল থেকে দ্বিতীয় দিনের মতো আন্দোলন করছেন শিক্ষার্থী-অভিভাবকরা। সহপাঠীর আত্মহত্যার প্ররোচনাকারীদের গ্রেফতার ও বিচার দাবিতে বেইলি রোড শাখার গেটের বাইরে বসে পড়েন তারা।

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com