প্রচ্ছদ

লাইফ স্টাইলের এক অনন্য নাম ‘রানওয়ে ম্যানিয়াক’

প্রকাশিত হয়েছে : ১২:২৪:৩৮,অপরাহ্ন ১৯ আগস্ট ২০১৮ | সংবাদটি ১৪৭ বার পঠিত

সিলেটেরকন্ঠডটকম

লাইফ স্টাসইল ডেস্ক: কনের সাজ আলোকসজ্জা আর সানাইয়ের সুরে মোহিত বিয়ে বাড়ির মূল আকর্ষণটা কিন্তু থাকে কনেকে ঘিরেই। তাই নজরকাড়া কনে সাজার স্বপ্ন থাকে সব মেয়েরই। বিয়ের সাজে এখন বৈচিত্র্য এসেছে। এই সময়ের কনের সাজ নিয়ে  পরামর্শ দিয়েছেন মিষ্ট বিউটি পার্লার এন্ড ক্লিনিক ও রূপবিশেষজ্ঞ মুন্নি হাসান।

শীত আসতে না আসতেই চারপাশে বাজতে শুরু করেছে বিয়ের বাদ্যি। বিয়েতে কনের সাজ হওয়া চাই নজরকাড়া। চিরচেনা কনের সাজ ছাড়াও বিয়ের সাজে বৈচিত্র্য আনতে এখন পছন্দ করছেন অনেকেই। ট্রেডিশনাল হোক কিংবা ট্রেন্ডি সাজে থাকা চাই ন্যাচারাল লুক। সাজের এই ধরনটাই এখন কনে সাজে জনপ্রিয় বলে জানান রাহিমা সুলতানা রীতা। তিনি বলেন, ‘এখন বিয়ের কনেরা ন্যাচারাল মেকআপ, ন্যাচারাল হেয়ার স্টাইলটাই পছন্দ করছেন।

তবে মেকআপটা ন্যাচারাল হলেও ভারি গহনা এখন কনেদের পছন্দ। গোল্ড, গোল্ড প্লেট, স্টোন সেটিং ভারি গহনা এখন বিয়েতে চলছে। কাতান, বেনারসি, জামদানিসহ বিভিন্ন ধরনের দেশি শাড়ির চাহিদা এখন বিয়েতে তুঙ্গে। বিশেষ করে বিয়েতে লাল কাতান এখন খুব জনপ্রিয়।

পাশাপাশি মেরুন, ম্যাজেন্টা, বেগুনির মতো ডিপ রঙগুলোর খুব চলছে। এ ধরনের শাড়ি এবং গহনার সঙ্গে ন্যাচারাল বেইজের সঙ্গে ডিপ মেকআপ লুক ফুটিয়ে তুললে ভালো লাগবে। এ ক্ষেত্রে বেইজ মেকআপটা ন্যাচারাল রেখে চোখটাকে গর্জিয়াস করে সাজালে ন্যাচারাল মেকআপে গর্জিয়াস লুক ফুটে উঠবে।

বিয়ের সাজে গায়ে হলুদ, বিয়ে এবং বউভাত তিনটি অনুষ্ঠানকে মাথায় রেখে সাজের পরিকল্পনা করতে পারেন। এ ক্ষেত্রে ট্রেন্ডি, ট্রেডিশনাল এবং ফিউশান তিনভাবে সাজে ভিন্নতা আনতে পারেন। বিয়ের দিন ট্রেডিশনাল সাজটা বেশি ভালো লাগবে। তবে পুরোপুরি ট্রেডিশনাল ঢঙে না সেজে ট্রেডিশনালের সঙ্গে মর্ডান লুক ফুটিয়ে তুললে সাজে আসবে আধুনিকতা। এ সময়ের কনেরা সাজে ট্রেডিশনালের সঙ্গে মর্ডান লুককে বেশি প্রাধান্য দিচ্ছেন। ট্রেডিশনালের সঙ্গে মর্ডান লুক ফুটিয়ে তুলতে গ্লোসি মেকআপ বেছে নিন এবং চোখকে স্মোকি করে তুলুন। স্মোকি আই সব ধরনের কনের সাজেই মানিয়ে যায়। এ ধরনের সাজের ক্ষেত্রে প্রথমে ত্বকের রঙের সঙ্গে মিলিয়ে কনসিলার লাগান চোখের নিচে এবং মুখের কালো দাগ থাকলে তাতে।

ত্বকের রঙের সঙ্গে মিলিয়ে ফাউন্ডেশন দিন সারা মুখে। ডার্ক কালার ফাউন্ডেশন দিয়ে কন্টুরিং করুন চিকবোন, নাকের দু’পাশ ও গালের ফোলা অংশে। গালে লাল ব্লাশন দিন। আইব্রু পেন্সিল দিয়ে সূক্ষ্ম রেখায় আইব্রু আঁকুন। আইব্রুর ঠিক নিচে হাইলাইট করুন গোল্ডেন আইশ্যাডো বা হাইলাইটার দিয়ে। রেড কিংবা ডার্ক শাড়ির সঙ্গে রেড কিংবা কালচে আইশ্যাডো দিয়ে স্মোকি করে চোখটাকে সাজিয়ে নিন। ব্যাক শ্যাডো দিন চোখের ভাঁজে ও বাইরের কোনায়। চোখের ভেতরের কোনায় সিলভার আইশ্যাডো লাগাতে পারেন। কালো লিকুইড আইলাইনার ও কাজল দিয়ে মোটা করে চোখ আঁকুন। আইল্যাশ লাগিয়ে ভারি করে মাশকারা লাগান। ঠোঁটযুগল ভরাট করে দিন টকটকে লাল, কমলা কিংবা বাদামি লিপস্টিকে।

বিয়ের সাজে এখন খুব ভারি খোঁপা চলছে না। একটু সিম্পল ধরনের উঁচু খোঁপা, সাইট বান বৌয়ের সাজে ভালো লাগবে। হালকা কার্ল করে ফন্টসেটিং খোলা, চুলের বাঁধের পার্ল সেট কিংবা পছন্দমতো ফুল লাগাতে পারেন।

বিয়েতে ট্রেডিশনাল শাড়ি পরলেও রিসিপশন বা বৌভাতে ফ্যাশনেবল, ট্রেন্ডি হালকা কাজ ও রঙের শাড়ি, ল্যাহেঙ্গা, সারারা, গাউন ধরনের পোশাক পরে বৈচিত্র্য আনতে পারেন। রঙের ক্ষেত্রে বৌভাতে ভালো লাগবে সোনালি, পেঁয়াজি, সফট পিংক, পিচ, চাঁপা সাদা রঙগুলো। এ ধরনের পোশাকের সঙ্গে সোনার পাশাপাশি ব্রোঞ্জ বা কপার, এন্টিক কিংবা মুক্তার ট্রেন্ডি গহনা ভিন্নতা আনবে। ট্রেন্ডি গহনা চাঁপা সাদা কিংবা হালকা রঙের বৌভাতের শাড়ির সঙ্গে দারুণ মানায়।

ট্রেন্ডি কিংবা ফিউশন বৌভাতের পোশাকের সঙ্গে সাজটাও হওয়া চাই ট্রেন্ডি কিংবা ফিউশন। এ ক্ষেত্রে বিয়ের সাজের মতো বেইজটাকে ন্যাচারাল রেখে সাজের কোনো একটা অংশ হাইলাইট করে সাজটাকে ফুটিয়ে তুলুন। চোখে সোনালি বা ডিপ ব্রাউন রঙের আইশ্যাডো ব্যবহার করুন। এতে ন্যাচারালের সঙ্গে ট্রেন্ডি লুক আসবে। পোশাকের রঙ হালকা হলে লিপস্টিক বেছে নিন গাঢ় রঙের। রিসিপশনে এখন খোলা হেয়ার স্টাইলই চলছে। ফন্টসেট করে চুলগুলো একটু কার্ল, রোল করে এক সাইড সামনে এনে রাখতে পারেন।

রানওয়ে ম্যানিয়াকের আয়োজনে, জননী জুয়েলারি’র সৌজন্যে এতে পোশাক সরবরাহ করেছে জনপ্রিয় মল চন্দ্রবিন্দু। ছবি তুলেছেন দেশ আফজল।

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com