প্রচ্ছদ

চুল ও ভ্রু কেটে গৃহবধুকে নির্যাতন

প্রকাশিত হয়েছে : ৬:১২:৫৮,অপরাহ্ন ০২ জানুয়ারি ২০১৮ | সংবাদটি ৫ বার পঠিত

নিজস্ব প্রতিবেদক

‘যৌতুকের দাবিতে’ ২২ বছরের এক নারীর চুল কেটে দিয়েছেন স্বামী। আর ভ্রু কেটেছে দেবর। সিগারেটের আগুন দিয়ে দুই হাতে ছ্যাঁকা দিয়েছেন শ্বশুর।

নরসিংদীর রায়পুরা উপজেলার জাহাঙ্গীনগর গ্রামে গত শনিবার এই নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে।

শ্বশুরবাড়ির লোকজনের নির্যাতনের মুখে অচেতন হয়ে পড়া ওই গৃহবধুকে উদ্ধার করে নরসিংদী জেলা হাসপাতালে ভর্তি করেছেন বাবার বাড়ির লোকজন।

মঙ্গলবার নির্যাতিত গৃহবধু তার স্বামী কবির মিয়া, শ্বশুর হাসেম মিয়া, শাশুড়ি ও দেবরসহ ৫ জনকে আসামি করে রায়পুরা থানায় মামলা করেছেন।

জানা গেছে, ছয় বছর আগে উপজেলা জাহাঙ্গীরনগর গ্রামের হাসেম মিয়ার ছেলে কবির মিয়ার সঙ্গে একই উপজেলার পলাশতলী ইউনিয়নের শাহর খোলা গ্রামের তরুণীর বিয়ে হয়।

তরুণীর পরিবারের অভিযোগ, বিয়ের কিছুদিন পর থেকে যৌতুকের জন্য তার উপর নির্যাতন শুরু করেন স্বামী কবির মিয়া।

এরপর বিভিন্ন সময় তিনি বাবার বাড়ি থেকে ৬০ হাজার টাকা এনে স্বামীকে দেন। এরপর কবির বাড়ি নির্মাণ শুরু করার জন্য তিন লাখ টাকা যৌতুক দাবি করেন।

গৃহবধু নতুন করে যৌতুক এনে দিতে অস্বীকার করলে তাকে বাড়ি থেকে বের করে দেয়ার হুমকি দেয় শ্বশুর বাড়ির লোকজন।

সর্বশেষ শনিবার বিকালে তাকে আবারও যৌতুকের জন্য চাপ দেয়া হয়।

এতে অস্বীকৃতি জানালে তাকে এলোপাথারি মারপিট শুরু করে স্বামী। এক পর্যায়ে কাঁচি দিয়ে তার মাথার চুল কেটে দেন তিনি।

এসময় গৃহবধুর চোখের ভ্রু কেটে দেন দেবর। এরপর শ্বশুর হাসেম মিয়ার হাতে থাকা সিগেরেট দিয়ে তার দুই হাতে ছ্যাঁকা দেন।

পরে স্বামী, দেবর, শ্বশুর ও শাশুড়ি মিলে গৃহবধুর উপর ঝাপিয়ে পড়েন। এতে তিনি জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। খবর পেয়ে বাবার বাড়ির লোকজন তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেন।

নির্যাতিত গৃহবধু যুগান্তরকে বলেন, ‘বিয়ের কিছুদিন পর থেকেই স্বামী, শ্বশুর, শাশুড়ি ও দেবর যৌতুকের জন্য আমাকে নির্যাতন শুরু করেন। ঘর নির্মাণের জন্য তিন লাখ টাকা যৌতুক দাবি করেন। কিন্তু আমার বাবা পক্ষে এত টাকা দেয়া সম্ভব নয়। বাবার বাড়ির কথা ভেবে শ্বশুরবাড়ির নির্যাতন মুখ বুঝে সহ্য করেছি।’

নির্যাতিত তরুণীর বাবা বলেন, ‘বিয়ে দিয়েছিলাম মেয়ে সুখে ঘর করবে বলে। কিন্তু বিয়ের পর থেকেই স্বামীর নির্যাতন সইতে হচ্ছে। মেয়েকে বাঁচাতে এ পযর্ন্ত যৌতুক বাবদ ৬০ হাজার টাকা দিয়েছি।’

গৃহবধুকে নির্যাতনের ঘটনায় মামলার কথা নিশ্চিত করেছেন রায়পুরা থানার ওসি দেলোয়ার হোসেন। তিনি বলেন, আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান শুরু হয়েছে।

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com