বুধবার, ১১ অক্টো ২০১৭ ১১:১০ ঘণ্টা

বাহুবলে পাহাড় কাটার দায়ে ৬ ব্যক্তিকে জরিমানা

Share Button

বাহুবলে পাহাড় কাটার দায়ে ৬ ব্যক্তিকে জরিমানা

বাহুবল (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি ॥ বাহুবলের পুটিজুরী ইউনিয়নের গোলগাঁও গ্রামে অবৈধভাবে পাহাড় কেটে মাটি-বালু পাচার ও বাহুবল বাজারে প্রশাসনের নির্দেশনা অমান্য করে যত্রতত্র যাত্রী উঠা-নামা করার দায়ে মোবাইল কোর্ট ৫ ব্যক্তিকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদন্ড ও এক ব্যক্তিকে ৫০ হাজার টাকা অর্থদন্ডে দন্ডিত করেছে। আজ (১১ অক্টোবর) বুধবার সন্ধ্যায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ জসীম উদ্দিনের নেতৃত্বে এ মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হয়। দন্ডিতদের বিকেল ৩টার দিকে আটক করা হয়।

সংশ্লিষ্টরা জানান, বাহুবল উপজেলার পুটিজুরী ইউনিয়নের গোলগাঁও গ্রামে পাহাড় কেটে অবৈধভাবে মাটি ও বালু উত্তোলন করে আসছে একটি অসাধু চক্র। গতকাল বিকেল ৩টার দিকে ওই গ্রামের একটি টিলায় এক্সাভেটর দ্বারা মাটি-বালু কেটে ট্রাক্টর দিয়ে পাচার করা হচ্ছিল। এ সময় উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ জসীম উদ্দিনের নেতৃত্বে অভিযান পরিচালনা করে ঘটনাস্থল থেকে কয়েকটি ট্রাক্টর সহ ৪ ব্যক্তিকে আটক করেন।

উক্ত অভিযান পরিচালনা করে ফেরার পথে বাহুবল বাজারে প্রশাসনের নির্দেশনা অমান্য করে যত্রতত্র যাত্রী উঠা-নামা করানোর বিষয়টি মোবাইল কোর্টে নজরে আসে। এ সময় মোবাইল কোর্ট ২ সিএনজি অটোরিকশা চালককে হাতে নাতে আটক করে। পরে সন্ধ্যায় উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ জসীম উদ্দিন মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে আটককৃতদের বিভিন্ন মেয়াদে সাজা প্রদান করেন।

সাজাপ্রাপ্তরা হল- অবৈধভাবে পাহাড় কেটে সাদা মাটি-বালু পাচারের দায়ে উপজেলার গোলগাঁও গ্রামের মৃত আনফর উল্লার পুত্র মোঃ ইসরাঈল মিয়া (৬৫) কে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা, অবৈধভাবে সাদা-মাটি ও বালু পাচারের দায়ে উপজেলার হিলালপুর গ্রামের বছির মিয়ার পুত্র হাছান আলী (২১), ফতেহপুর গ্রামের মোঃ আলতা মিয়ার পুত্র মোঃ আনোয়ার মিয়া (৩০) ও মৃত সাইদুল হকের পুত্র জামাল মিয়া (২২) কে ৭ দিন করে বিনাশ্রম কারাদন্ড এবং বাহুবল বাজারে অবৈধভাবে যাত্রী উঠা-নামা করায় উপজেলার কবিরপুর গ্রামের সিএনজি চালক মোঃ বাদশা মিয়ার পুত্র মোঃ আব্দুল হাই (২২) ও কচুয়াদি গ্রামের মৃত সিরাজ উদ্দিনের পুত্র মোঃ আলাল উদ্দিন (২১) কে পনের দিনের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করেন।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ জসীম উদ্দিন বলেন, রাঘব বোয়ালদের ছত্র ছায়ায় বাহুবলে পাহাড় কেটে প্রকৃতি ধ্বংস করা হচ্ছে। এখনি এসব বন্ধ না হলে ভবিষ্যতে কেউ রেহাই পাবেন না।