শনিবার, ১২ আগ ২০১৭ ০৬:০৮ ঘণ্টা

নার্স পেটানোর অভিযোগে বাবাসহ ছাত্রলীগ নেতা আটক

Share Button

নার্স পেটানোর অভিযোগে বাবাসহ ছাত্রলীগ নেতা আটক

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের এক সিনিয়র স্টাফ নার্সকে পেটানোর অভিযোগে ছাত্রলীগ নেতাসহ তার বাবাকে আটক করেছে পুলিশ।

শনিবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে তাদের আটক করা হয়। আটককৃত হিমেল রাজশাহী নগীর মতিহার থানার হরিয়ান ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ড ছাত্রলীগের যুগ্ম সম্পাদক। তার বাবা জাহাঙ্গীর আলম।

এদিকে সহকর্মীকে পেটানোর ঘটনায় হাসপাতালের অন্যান্য নার্সদের মধ্যে চরম উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। বিচারের দাবিতে তারা কর্মবিরতিও শুরু করেন। তবে হাসপাতালের পরিচালকের আশ্বাসে আড়াই ঘণ্টার মাথায় তারা কাজে যোগ দেন।

হাসপাতাল সূত্র জানায়, শনিবার সকাল ১০টার দিকে ছেলে ছাত্রলীগ নেতা হিমেলকে সঙ্গে নিয়ে বাবা জাহাঙ্গীর আলম হাসপাতালের ৩৬ নম্বর ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন তার মেয়ে ফারজানাকে দেখতে যান।

এসময় হিমেল দায়িত্বরত সিনিয়র স্টাফ নার্সদের কাছে বোনের চিকিৎসা সম্পর্কে খোঁজখবর নিতে যান। হিমেল হাসপাতালে চিকিৎসায় অবহেলার অভিযোগ করেন।

এনিয়ে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে ফেরদৌসি খাতুন নামের এক সিনিয়র স্টাফ নার্সের ওপর চড়াও হন হিমেল। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ওই নার্স হিমেলের গালে চড় দেন। এতে হিমেল আরও উত্তেজিত হয়ে ফেরদৌসি খাতুনকে ধাক্কাধাক্কি শুরু করেন। একপর্যায়ে হিমেলের বাবা ফেরদৌসি খাতুনকে চড়-থাপ্পড় মারতে শুরু করেন।

এ ঘটনার পরে হাসপাতালের নার্সরা কাজ ফেলে ধর্মঘট শুরু করেন। পরে পুলিশ গিয়ে ছাত্রলীগ নেতা হিমেল এবং তার বাবা জাহাঙ্গীর আলমকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

হাসপাতালের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মোতাহার হোসেন জানান, সিনিয়র স্টাফ নার্স ফেরদৌসি খাতুনকে পেটানোর বিচার দাবি করে নার্সরা কর্মবিরতি শুরু করেন। পরে হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আ ফ ম রফিকুল ইসলাম প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দিলে দুপুর ১২টার দিক থেকে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।

নগরীর রাজপাড়া থানার ওসি হাফিজুর রহমান বলেন, ‘নার্সকে পেটানোর অভিযোগে বাপ-ছেলেকে আটক করা হয়েছে। এখন হাসপাতালের পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।