প্রচ্ছদ

ব্যারেস্টার ইমনকে বঙ্গবন্ধুর সাথে তুলনা, সমালোচনার ঝড়

প্রকাশিত হয়েছে : ২:৩২:০৫,অপরাহ্ন ১১ মার্চ ২০১৭ | সংবাদটি ৬৬ বার পঠিত

নিজস্ব প্রতিবেদক

সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারেস্টার এনামুল কবির ইমনকে জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সাথে তুলনা করায় সমালোচনা ও প্রতিববাদের ঝর উঠেছে। সুনামগঞ্জ যুবলীগ নেতা পৌরব আহমদ তার নিজ ফেজবুকে ব্যারেস্টার এনামুল কবির ইমনের ছবি দিয়ে  সুনামগঞ্জের বঙ্গবন্ধু উল্লেখ করে পোস্ট দেন।

বিষয়টি আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগ সহ নেতা কর্মীদের নজরে এলে সমালোচনা ও প্রতিবাদের ঝর ওঠে। অনেকেই একে রাজনীতির তেলবাজি হিসেবে আক্ষায়িত করেছেন।

বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সমালোচনার ঝড় বইছে।
কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সিদ্দকি নাজমুল আলম লিখেন- ‘কতো বড় দুঃসাহস শয়তানের’ এরপর থেকেই শুরু হয় প্রতিবাদ।

সজীব চৌধুরী নামে একজন লিখেছেন,  ‘জাতির জনকের সাথে তুলনা করছে একটা ছাগলের ৩ নম্বর বাচ্চার।বাংলাদেশের ইতিহাসে বঙ্গবন্ধু মত নেতা কেউ নেই আর কোনদিন জন্ম নেবেনা,এটা মনে রাখতে হবে ঐ মুখোশধারী শয়তানের।’

আব্বাস তাওহিদ চমক (Abbas Towhid Chamok) নামে একজন লিখেছেন- ‘তেলবাজি করতে করতে এমন অবস্থা হয়ে গেছে এখন সেটা রীতিমতো ভয়াবহ রোগে পরিনত হইসে….
ছেলে/মেয়ে ইসলাম ধর্মের নামে জঙ্গি সংগঠনের সাথে যুক্ত হয়ে গেলে তাকে আর যেমন ধর্মভীরু ভালো মানুষ বলা যায় না… ঠিক তেমনি অতি বিপ্লব, আবেগ, ভালোবাসাকে তেলবাজিতে পরিনত করে নষ্টামী করলে তাকে বঙ্গবন্ধু আদর্শের কর্মী বলা যায় না……’

জাহিদ হাসান (Jahid Hasan) লিখেছেন, ‘জাতির জনকের সাথে তুলনা করছে একটা ছাগলের ৩ নম্বর বাচ্চার।বাংলাদেশের ইতিহাসে বঙ্গবন্ধু মত নেতা কেউ নেই আর কোনদিন জন্ম নেবেনা,এটা মনে রাখতে হবে ঐ মুখোশধারী শয়তানের।।’

রহমান তানজিল (Rahman Tanzil ) লিখেছেন, ‘ভাই এই হচ্ছে সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগ। হাইব্রিডদের নেতা বানালে এরকম হবেই।ছাত্রদল,বি.এন.পি,জাতীয় পার্টি থেকে মানুষ এনে আওয়ামী রাজনীতি হয় না। এটাই তার প্রমাণ। উনারা ত অন্য আদর্শ বুকে ধারন করেন তাই ববঙ্গবন্ধু যে তুলনাহীন তাই ভুলে যায়।জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদকের সাথে তুলনা? উনি ও তেল খুব বেশি নেন…………..তেলের রাজনীতি ভালোবাসেন…..কখনো রাজপথের রাজনীতি করেন নিত তাই!!!কেন্দ্রীয় কমিটির দৃষ্টি আকর্ষণ করছি………..ছাত্রলীগের কমিটিও যদি হাইব্রিডদের দেয়া হয় তাহলে এই অবস্থাই হবে।ভাড়াটে মানুষ এনে মিছিল দিয়ে কি জেলা ছাত্রলীগের দায়িত্ব পাওয়া যাবে???এসবই চলছে এখন সুনামগঞ্জ এ।উনার ই এক অনুসারী যিনি ছাত্রলীগের কেন্ডিডেট….উনিও ছাত্রদলের সাবেক কর্মীকে সামনে রেখে মিছিল দেন!!!!!ওই ছাত্রদলের নেতাও এখন সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদকের চত্রছায়ায় আছেন…………ভাই আপনার কাছে অনুরুধ রইলো…….ছাত্রলীগে আমরা হাইব্রিড চাই না………”