প্রচ্ছদ

দেশে কর্মজীবী নারীর সংখ্যা ৩৮ শতাংশে উন্নীত হয়েছে: ড. মোমেন

প্রকাশিত হয়েছে : ২:৫৫:০২,অপরাহ্ন ১২ অক্টোবর ২০১৮ | সংবাদটি ৬ বার পঠিত

নিজস্ব প্রতিবেদক

জাতিসংঘস্থ বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনের সাবেক প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত ড. এ কে আব্দুল মোমেন বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশ থেকে দারিদ্রতা, দুর্নীতি, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদকে বিতাড়িত করেছেন। তাঁর প্রচেষ্টায় দেশে কর্মজীবী নারীর সংখ্যা ৬ ভাগ থেকে এখন ৩৮ ভাগে উন্নীত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১১ অক্টোবর) বিকেলে সিলেট শহরতলীর শাহপরান এলাকায় বিআরডিটিআই সম্মেলন কক্ষে ‘একটি বাড়ি একটি খামার’ প্রকল্পের ‘ট্রেডভিত্তিক প্রশিক্ষণ’ কর্মসূচির প্রশিক্ষণার্থীদের মাঝে সনদ বিতরণ অনুষ্ঠানে একথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, শেখ হাসিনার নিজস্ব উদ্যোগ ও দারিদ্র বিমোচনে সরকারের সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির আওতায় অগ্রাধিকার একটি প্রকল্প ‘একটি বাড়ি একটি খামার’। যার ফলে দেশে দরিদ্রতার হার ২৪ শতাংশে নেমে এসেছে।

ড. মোমেন বলেন, বঙ্গবন্ধু ও তাঁর সুযোগ্য কন্যা শেখ হাসিনার ধ্যান-ধারণা ও রাজনৈতিক দর্শন হচ্ছে মানুষের মঙ্গল, উন্নয়ন এবং সর্বক্ষেত্রে মানুষের সক্ষমতা বাড়ানো। দারিদ্র জনগোষ্ঠীকে অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী করতে একটি অন্যতম প্রয়াস হলো একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্প। এর ফলে দেশের দারিদ্রতা হ্রাস পাচ্ছে। অতি দারিদ্রসীমার নিচে যারা আছে তাদেরকে তুলে আনার জন্য শেখ হাসিনার প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

মোমেন বলেন, আমরা সেই বাংলাদেশ দেখতে চাই, যেখানে কোন দরিদ্রতা থাকবে না। তার জন্য স্থিতিশীল সরকার প্রয়োজন। এজন্য শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকারকে আবারও নির্বাচিত করা একান্ত জরুরি।

একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্পের আওতায় সিলেট সদর উপজেলার ১২০ জনকে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে। এর মধ্যে পুরুষ ৭৩জন ও নারী ৪৭জন রয়েছে। গত ৭ অক্টোবর থেকে ১১ অক্টোবর পর্যন্ত পাঁচদিনব্যাপি প্রশিক্ষণ শেষে বৃহস্পতিবার সনদ বিতরণ করা হয়েছে।

একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্প সিলেট জেলার সমন্বয়ক ও বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট (বিআরডিটিআই) সিলেটের পরিচালক গোলাম ছারুয়ার মোস্তফা জানান, একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্পের অধীনে হাঁস-মুরগি ও সবজি চাষ বিষয়ে পাইলট প্রকল্পের অধীনে ‘ট্রেডভিত্তিক প্রশিক্ষণ কোর্স’ কর্মসূচি চালু হয়েছে। দেশের মধ্যে সিলেট জেলায় ও গোপালগঞ্জ জেলায় এই কর্মসূচি শুরু হয়েছে।

তিনি জানান, সিলেটের সদর উপজেলার ৪০টি গ্রাম সমিতির ১২০জনকে প্রথম পর্বে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে সবক’টি উপজেলার সমিতির উপকারভোগী সদস্যরা এই প্রশিক্ষণ পাবেন। হাঁস-মুরগি পালন ও সবজি চাষে উদ্বুদ্ধ করতে এই প্রশিক্ষণ বলে জানান তিনি। তিনি আরও জানান, প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত সদস্যরা সবজি চাষ ও হাস-মুরগি পালন শুরু করলে তাদের জন্য সমিতি থেকে কম সুদে অধিক পরিমাণে ঋণ প্রদান হবে।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন সিলেট সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকের পরিচালক আশফাক আহমদ, খাদিমপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান এডভোকেট আফছর আহমদ। বিআরডিটিআই-এর উপপরিচালক জাহাঙ্গীর আলমের পরিচালনায় প্রশিক্ষণার্থীদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন রমেশ মুন্ডা, রুজিনা বেগম।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা (বাসস) এর সিলেট ব্যুরো প্রধান মকসুদ আহমদ মকসুদ, সিলেট মহানগর যুবলীগের আহ্বায়ক আলম খান মুক্তি প্রমুখ।

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com