প্রচ্ছদ

রাজধানীর হাসপাতালে নবজাতক বদল!

প্রকাশিত হয়েছে : ১১:১৬:০৩,অপরাহ্ন ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮ | সংবাদটি ২০ বার পঠিত

নিজস্ব প্রতিবেদক

রাজধানীর কলাবাগান থানা এলাকার একটি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের দায়িত্বে অবহেলার কারণে হিন্দু-মুসলিম ধর্মের দুই দম্পতির নবজাতক সন্তানদের মধ্যে রদবদলের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

হাসপাতাল থেকে নবজাতক রিলিজ নেয়ার সময় হিন্দু সম্প্রদায়ের সন্তান এক মুসলিম দম্পতির নবজাতকের সঙ্গে পাল্টিয়ে ফেলা হয়। ঘটনার তিন দিনপর বুধবার রাতে নরসিংদীর পলাশ থানা পুলিশের সহযোগিতায় তাদের নিজ নিজ সন্তানদের দম্পতিদের কাছে ফিরিয়ে দেয়া হয়েছে।

বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করে পলাশ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) গোলাম মোস্তাফা জানান, ময়মনসিংহ জেলার ফুলপুর উপজেলার চনপলাশি গ্রামের প্রবাসী আজিজুল মিয়ার স্ত্রী রূপালী আক্তার সন্তান প্রসবের জন্য গত ১০ সেপ্টেম্বর ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হন। পরে ওই দিনই নবজাতক ওয়ার্ডে একটি পুত্রসন্তান প্রসব করেন।

তিনি জানান, প্রসবের পরপরই নবজাতকটির শারীরিক অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে পদ্মা জেনারেল হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়। সেখানে নবজাতক শিশুটির অবস্থার অবনতি দেখে তাকে আইসিইউতে ভর্তি করা হয়।

গোলাম মোস্তাফা জানান, একই দিনে পলাশ উপজেলার জিনারদী ইউনিয়নের লেবুপাড়া গ্রামের লিটন দত্তের স্ত্রী তন্নি দত্ত সন্তান প্রসবের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হন। সেখানে তন্নি দত্তের একটি কন্যাসন্তান প্রসব করেন। পরে ওই কন্যাসন্তানটিও আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে পদ্মা জেনারেল হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়। সেখানে তন্নি দত্তের কন্যাসন্তানটি শারীরিক অবস্থার অবনতি দেখে তাকেও আইসিইউতে ভর্তি করা হয়।

পরে পদ্মা জেনারেল হাসপাতালেই কর্তৃপক্ষের দায়িত্ব অবহেলায় নবজাতক রদবদলের ঘটনা ঘটে।

এ বিষয়ে প্রবাসী আজিজুল মিয়ার স্ত্রী রূপালী আক্তার বলেন, আমার নবজাতক সন্তানের শারীরিক অবস্থা একটু ভালো হলে পদ্মা জেনারেল হাসপাতাল থেকে রিলিজ নিয়ে বাড়ি চলে যাই। বাড়িতে গিয়ে সন্তানের পরনে পেম্পাস পরিবর্তন করতে গিয়ে দেখি আমাকে ছেলেসন্তানের বদলে কন্যাসন্তান দিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

সঙ্গে সঙ্গে পদ্মা জেনারেল হাসপাতালে যোগাযোগ করলে তারা বিষয়টি নিয়ে দেখবে বলে জানান। পরে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে নিজের সন্তান ফিরে পেতে পদ্মা জেনারেল হাসপাতালে যাই। সেখানে রেজিস্টার খাতা দেখে তন্নি দত্তের সঙ্গে আমার নবজাতক শিশুসন্তান বদল হয়েছে নিশ্চিত হই এবং রেজিস্টার খাতা থেকে তন্নি দত্তের ঠিকানায় নিয়ে নরসিংদীর পলাশ উপজেলায় এসে থানা পুলিশের সহযোগিতা ও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান প্রফেসর কামরুল ইসলাম গাজীর হস্তক্ষেপে ছেলেসন্তানটিকে ফিরে পাই।

অপরদিকে ভগবানের আশীর্বাদ মনে করে নবজাতক ছেলেসন্তান নিয়ে খুশি ছিলেন তন্নি দত্তের পরিবার।

এ বিষয়ে পদ্মা জেনারেল হাসপাতালের ম্যানেজার কামরুজ্জামানের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া কোনো কথা বলতে রাজি হয়নি।

পলাশ থানার ওসি মকবুল হোসেন মোল্লা জানান, বুধবার সন্ধ্যায় পদ্মা জেনারেল হাসপাতালের ম্যানেজার কামরুজ্জামান ও রূপালী আক্তার এসে থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করলে আমরা তন্নি দত্তের পরিবারকে তলব করি এবং দুই পরিবারের সঙ্গে কথা বলে ও রিলিজের কাগজপত্র দেখে নিশ্চত হই যে, রূপালী আক্তারের কাছে থাকা নবজাতক কন্যাসন্তানটি তন্নি দত্তের আর তন্নি দত্তের কাছে থাকা নবজাতক পুত্রসন্তানটি রূপালী আক্তারের। পরে দুই পরিবারের সিদ্ধান্তে যার যার সন্তান তার তার কাছেই ফিরিয়ে দেয়া হয়।

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com