মঙ্গলবার, ১৭ এপ্রি ২০১৮ ১১:০৪ ঘণ্টা

ছয় বছরেও জট খোলেনি ইলিয়াস আলীর অন্তর্ধান রহস্যের

Share Button

ছয় বছরেও জট খোলেনি ইলিয়াস আলীর অন্তর্ধান রহস্যের

ছয় বছরেও সন্ধান মিললো না বিএনপি নেতা ইলিয়াস আলীর। তিনি বেঁচে আছেন না মারা গেছেন- এই প্রশ্নেরও কোনো উত্তর মিলেনি। বিএনপির সাবেক এই সাংগঠনিক সম্পাদকের অর্ন্তধান এখনো রহস্যই থেকে গেলো।

২০১২ সালের ১৭ এপ্রিল রাজধানীর রূপসী বাংলা হোটেলে আড্ডা শেষে ফিরছিলেন বনানীর বাসায়। পথে মহাখালী সাউথ পয়েন্ট স্কুলের সামনে থেকে গাড়িচালকসহ নিখোঁজ হন ইলিয়াস আলী। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ তার ব্যবহৃত গাড়িটি উদ্ধার করে পরিত্যক্ত অবস্থায়। তবে ইলিয়াসের কোনো সন্ধান মিলেনি আজ পর্যন্ত।

বাংলাদেশের রাজনীতিতে ইলিয়াস আলী এক আলোচিত-সমালোচিত নাম। সাংগঠনিক দক্ষতার মাধ্যমে সিলেট বিভাগে বিএনপি চাঙ্গা করায় দলে আলোচিত ছিলেন জেলা বিএনপির সাবেক এই সভাপতি আবার সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের কারণে সমালোচিতও ছিলেন সাবেক এই সাংসদ। রাজনৈতিক জীবনের মতো তাঁর অন্তর্ধানও আলোচনা-সমালোচনাময়।

বিএনপির পক্ষ থেকে দাবি করা হচ্ছে, ইলিয়াস আলীকে সরকার গুম করেছে। ইলিয়াস আলীকে ফিরিয়ে দেওয়ার দাবি জানিয়ে আসছে দলটি। নিখোঁজ হওয়ার পর ইলিয়াস আলীকে ফিরে পাওয়ার দাবিতে সিলেটে বিএনপি ব্যাপক বিক্ষোভ করলেও ধীরে ধীরে ম্রিয়মান হয়ে এসেছে।

চোখের জল শুকিয়ে গেছে মা সূর্যবান বানুরও। দরোজায় কড়া নাড়ার শব্দে এখনো কান পেতে রাখেন স্ত্রী তাহসিনা রুশদীর লুনা। বাবার অপেক্ষায় এখনো আনমনা হয়ে থাকেন সন্তানরা। কিন্তু আজও ফিরেননি ইলিয়াস আলী। তার গাড়িচালক আনসার আলীরও মেলেনি সন্ধান।

এদিকে, সরকার ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকে প্রথমদিকে ইলিয়াসকে উদ্ধারের জোর চেষ্টা চালানো হচ্ছে বলে দাবি করা হলেও দীর্ঘ ৬ বছরেও তার কোনো সন্ধান দিতে পারেনি তারা। থেমে গেছে ইলিয়াস আলীকে উদ্ধারে প্রশাসনের তৎপরতাও।

ইলিয়াস আলীর স্ত্রী তাহসিনা রুশদীর লুনা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-রেজিস্ট্রার। তিনি জানান, অপেক্ষার অনিশ্চয়তা নিয়েই দিন কাটাচ্ছেন তারা। ইলিয়াস আলীর ব্যাপারে নতুন কোনো তথ্য নেই। নিখোঁজের পর পুলিশ তো মামলা নেয়নি। বনানী থানায় একটি জিডি করেছিলেন। সে জিডির ভিত্তিতে তেমন কোনো অনুসন্ধান চালানো হয়নি। এখনো জানি না পুলিশের অগ্রগতি কী? হাইকোর্টে রিট দায়েরের পর আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে উদ্ধার তৎপরতা সম্পর্কে জানাতে একটি নির্দেশ দিয়েছিল উচ্চ আদালত। কয়েক মাস পর সে নির্দেশ আর রক্ষা করেনি আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এক সময় নানা গুঞ্জন-গুজব শোনা যেত। এখন সেসবও বন্ধ হয়ে গেছে। তবুও আমি শেষদিন পর্যন্ত বিশ্বাস রাখতে চাই ইলিয়াস একদিন ফিরে আসবে। তার এলাকার মানুষও এটাই বিশ্বাস করে।

লুনা জানান, ইলিয়াস আলীকে উদ্ধারের দাবিতে সিলেটের লোকজন রাস্তায় নেমে এসে প্রাণবিসর্জন দিতেও দ্বিধা করেনি। এ ঘটনায় উল্টো বিএনপির স্থানীয় নেতাকর্মীসহ অন্তত ১২ হাজার এলাকাবাসীর বিরুদ্ধে বিশ্বনাথ ও ওসমানীনগর থানায় দায়ের করা হয়েছিল ৪টি মামলা। সেগুলো এখন বিচারাধীন। ইলিয়াস আলী ফিরে না এলেও মামলার ঘানি টানছেন সিলেটের হাজার হাজার মানুষ। পারিবারিক জীবনেও তারা কাটাচ্ছেন আর্থিকভাবে দুঃসময়। আইনগত জটিলতার কারণে ইলিয়াস আলীর ব্যাংক অ্যাকাউন্টগুলো বন্ধ। আইনজীবীরা জানিয়েছেন গুমের সাত বছর না পেরুলে অ্যাকাউন্টগুলোতে লেনদেন করতে পারবেন না পরিবারের সদস্যরা। ফলে বিশ্ববিদ্যালয়ে চাকরি ও পারিবারিক টুকটাক ব্যবসার আয় দিয়েই সাংসারিক ব্যয় নির্বাহ করছেন। ছেলেমেয়েদের পড়াশোনার জন্য ঋণ করেছেন বাধ্য হয়ে।

নগরীতে মানববন্ধন: এম ইলিয়াস আলী নিখোঁজের ৬ বছর অতিবাহিত হওয়ার পরও এখন পর্যন্ত ফিরে না পাওয়ার প্রতিবাদে এবং অবিলম্বে ফিরে পাওয়ার দাবিতে মঙ্গলবার দুপুর ১২ টায় সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে স্বেচ্ছাসেবকদল ও ছাত্রদলের উদ্যোগে মানববন্ধন অনুষ্টিত হবে।

এতে বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠণের সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীদেরকে যথাসময়ে উপস্থিত থাকতে অনুরোধ জানানো হয়েছে। সিলেট মহানগর স্বেচ্ছাসেবকদলের আহবায়ক কাউন্সিলর ফরহাদ চৌধুরী শামীম স্বাক্ষরিত এক প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।