মঙ্গলবার, ১০ এপ্রি ২০১৮ ০৭:০৪ ঘণ্টা

রাতের আঁধারে সাবেক স্বামীর ছুরিকাঘাতে গৃহবধূ খুন

Share Button

রাতের আঁধারে সাবেক স্বামীর ছুরিকাঘাতে গৃহবধূ খুন

ফরিদপুরের চরভদ্রাসনে রাতের আঁধারে সাবেক স্বামীর ছুরিকাঘাতে এক গৃহবধূ খুন হয়েছেন।

রিক্তা বেগম (২২) নামে ওই গৃহবধূকে সোমবার রাত ৯টায় ছুরিকাঘাত করেন তার সাবেক স্বামী আলমগীর হোসেন (৩৫)। পরে মঙ্গলবার দুপুরে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান রিক্তা।

আলমগীর কুষ্টিয়া জেলার দৌলতপুর উপজেলার খরিবোনা গ্রামের ইব্রাহিম দর্জির ছেলে। নিহত রিক্তা বেগম পার্শ্ববর্তী সদরপুর উপজেলার খেজুরতলা গ্রামের কালাম মোল্যার মেয়ে।

প্রায় ছয় বছর আগে বিয়ের পর থেকে স্বামী আলমগীরের নির্যাতন সইতে না পেরে কিছুদিন আগে তাকে তালাক দেন রিক্তা বেগম। পরে সদরপুর উপজেলার বাবুরচর খালাশী ডাঙ্গী গ্রামের আলী আহমেদের ছেলে শাহজালালকে (৩৬) দ্বিতীয় বিয়ে করেন রিক্তা।

এরই জের ধরে সাবেক স্বামী আলমগীর হোসেন উপজেলা সদরের বর্তমান স্বামী শাহজালালের ভাড়া বাড়িতে এসে রাতের আঁধারে রিক্তার তলপেটে ছোরা মেরে পালিয়ে যান।

জানা যায়, গত ৮ মার্চ রিক্তা বেগম নতুন স্বামী শাহজালাল ও আগের সংসারের এক ছেলে রাহুলকে নিয়ে চরভদ্রাসন উপজেলা সদরে ইউসুপ বাছারের ভাড়া বাড়িতে বসবাস শুরু করেন।

ঘটনার রাত সোমবার রিক্তার বর্তমান স্বামী শাহজালাল সদরপুর উপজেলা বাজারে জান্নাত সুইং নামে কাপড় ও পোশাক তৈরি ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে কর্মরত ছিলেন।

এ সময় রিক্তা তার ছেলে রাহুলকে (৪) নিয়ে ভাড়া বাড়িতে অবস্থান করছিলেন। রাতে ওষুধ কেনার জন্য ছেলেকে নিয়ে রিক্তা ঘর থেকে বের হলেই আগে থেকে ওত পেতে থাকা সাবেক স্বামী আলমগীর তাকে তুলে নেয়ার জন্য টানাহেঁচড়া শুরু করেন।

এর একপর্যায়ে ছেলে রাহুলের সামনেই ধারালো ছুরি দিয়ে রিক্তার তলপেটে আঘাত করে মুমূর্ষু অবস্থায় তাকে ফেলে পালিয়ে যান আলমগীর।

পরে গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে মঙ্গলবার দুপুরে তার মৃত্যু হয়।

চরভদ্রাসন থানার ওসি রাম প্রসাদ ভক্ত ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।