প্রচ্ছদ

খুন হওয়ার ৮ বছর পর নারী ফিরলেন দ্বিতীয় স্বামীর সঙ্গে!

প্রকাশিত হয়েছে : ৯:১৭:৫৯,অপরাহ্ন ০২ এপ্রিল ২০১৮ | সংবাদটি ১১ বার পঠিত

সিলেটেরকন্ঠডটকম

২২ বছরের আসমা বিবির সঙ্গে বিয়ে হয়েছিল ইবরার আহমেদের। পরিবারের থেকেই তাদের বিয়ের আয়োজন করা হয় ২০০৯ সালে। বিয়ের এক বছর না ঘুরতেই হঠাৎ নিখোঁজ হয়ে যান আসমা।

পাকিস্তানের পঞ্জাব রাজ্যের পালায়ান গ্রামের বাসিন্দা ছিল আসমা বিবি। মেয়ে নিখোঁজ হওয়ার পরে মা পুলিশে অভিযোগ করেন। সেই অভিযোগে মেয়ের স্বামীকে স্ত্রী হত্যার অভিযোগে অভিযুক্ত করা হয়।

অভিযোগে আসমা মা বলেন, তার মেয়েকে হত্যা করা হয়েছে। পাকিস্তানের দণ্ডবিধি অনুযায়ী, ৩০২ ধারায় স্ত্রীকে হত্যা করার অভিযোগে ইবরার আহমেদকে গ্রেফতার করে পুলিশ। যদিও ক্ষতিপূরণের টাকা হাতে পেয়ে আসমার মা সেই অভিযোগ প্রত্যাহার করেন।

তারপর কেটে যায় দীর্ঘ আট বছর। চলতি বছরের মার্চ মাসের শেষের দিকে হঠাৎ একদিন নিজের গ্রামে হাজির হন আসমা। তবে নতুন নাম ‘নীলম’ নিয়ে। সঙ্গে ছয় সন্তান।

আসমা ওরফে নীলমের প্রথম পক্ষের স্বামী ইবরার আহমেদের এক আত্মীয় তাকে দেখে চিনতে পারেন এবং তৎক্ষণাৎ পুলিশে খবর দেন। ধরা পড়েন নীলম।

পুলিশি জেরায় নিজের স্বীকার করে জানান যে, তিনিই আসমা। পুলিশকে তিনি জানান, প্রেমিক নাজির আহমেদের সঙ্গে পালিয়ে গিয়েছিলেন তিনি। বিয়ের আগে থেকেই তার সম্পর্ক ছিল নাজিরের সঙ্গে। তার পরিবার জোর করে বিয়ে দেয় ইবরার সঙ্গে।

নাজির দুবাইয়ে চাকরি পেয়ে যাওয়ায় আসমা তার সঙ্গে পালিয়ে যান। কিন্তু সম্প্রতি তার চাকরি চলে যাওয়ায় তারা সবাই পাকিস্তানে ফিরে আসেন।

আসমা-নাজিরের বিরুদ্ধে ৪৯৪ ও ৪২০ ধারায় মামলা রুজু হয়েছে। প্রথম স্বামীর সঙ্গে বিবাহবিচ্ছেদ না করেই দ্বিতীয় বিয়ের অভিযোগে এ মামলা করা হয়েছে।

শনিবার আসমার জামিন মঞ্জুর করেন আদালত। তার বদলে তাকে ৫০ হাজার টাকার দুটি বন্ড জমা করার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com