মঙ্গলবার, ১৩ মার্চ ২০১৮ ১০:০৩ ঘণ্টা

জামিন ঠেকাতে সরকার ও দুদক একাকার হয়ে গেছে

Share Button

জামিন ঠেকাতে সরকার ও দুদক একাকার হয়ে গেছে

চেম্বার আদালতে শুনানিতে অ্যাটর্নি জেনারেল যা বলেছেন তার সবই রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলে মন্তব্য করেছেন খালেদা জিয়ার আইনজীবী অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন।

মঙ্গলবার রাষ্ট্রপক্ষ ও দুদকের আলাদা দুটি আবেদনের ওপর শুনানি শেষে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমের বক্তব্যের প্রেক্ষিতে এ কথা বলেন তিনি।

আদালত শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে জয়নুল আবেদীন বলেন, জামিন ঠেকাতে সরকার এবং দুদক একাকার হয়ে গেছে। আদালত হাইকোর্টের দেয়া জামিন স্থগিত না করে তাদের আপিল দুটি বুধবার শুনানির জন্য পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে পাঠিয়ে দিয়েছেন। খালেদা জিয়াকে দীর্ঘ কারা অন্তরালে রাখার জন্যই আপিল করা হয়েছে।

শুনানির সময় আদালতে উপস্থিত ছিলেন আইনজীবী আব্দুর রেজাক খান, এজে মোহাম্মদ আলী, সানাউল্লাহ মিয়া, ব্যারিস্টার আমিনুল হক, ব্যারিস্টার বদরোদ্দোজা বাদল, ব্যারিস্টার কায়সার কামাল, ব্যারিস্টার এহসানুর রহমান ও সগির হোসেন লিওনসহ বিপুলসংখ্যক আইনজীবী। তবে গণমাধ্যমকর্মীদের সেখানে প্রবেশ করতে পারেননি।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় দণ্ডিত বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে হাইকোর্টের দেয়া জামিন স্থগিত করেননি চেম্বার আদালত। জামিন স্থগিত চেয়ে রাষ্ট্র ও দুদকের করা পৃথক দুটি আবেদন বুধবার আপিল বিভাগের নিয়মিত বেঞ্চে শুনানির জন্য পাঠান আদালত।

সোমবার জামিন আদেশের পর অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম ও দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম বলেছিলেন, তারা হাইকোর্টের জামিন আদেশের বিরুদ্ধে সোমবার চেম্বার আদালতে যাবেন। এর ধারাবাহিকতায় জামিন স্থগিত চেয়ে মঙ্গলবার সকালে চেম্বার আদালতে আবেদন করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) ও রাষ্ট্রপক্ষ।

এর আগে সোমবার বিএনপি চেয়ারপারসনকে চার মাসের অন্তর্বর্তীকালীন জামিন দেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে আগামী চার মাসের মধ্যে মামলার পেপারবুক প্রস্তুত করতে সংশ্লিষ্ট শাখাকে নির্দেশ দেন আদালত।